বৃহস্পতিবার, ৩০ Jun ২০২২, ০৩:৪৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ফুটবল শিরোপা অর্জনকারীদের সংবর্ধনা প্রদান শারীরিক উপকারী তা জানলে সাওম বা রোজা রাখা নিয়ে শুরু হয়ে যেত প্রতিযোগিতা! ফুটবল টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন ফেনিবিল সমাজকল্যাণ যুব সংঘ রানার্সআপ কেজিকে সমাজকল্যাণ যুব সংঘ ব্রীজের অভাবে রোগীদের চরম ভোগান্তি ইয়াকুবিয়া দাখিল মাদরাসার উদ্যোগে বীরমুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন আলোকচিত্র প্রদর্শনী : সুনামগঞ্জের সাংবাদিক আকরাম উদ্দিনের ‘৩৪ বছর’ কোভিড ভ্যাকসিন প্রদান কর্মসূচী বাস্তবায়নে ফেনিবিল সমাজকল্যাণ যুব সংঘ সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধি সম্মেলন অনুষ্ঠিত নতুন জার্সি গায়ে দুর্দান্ত জয় পেল ফেনিবিল সমাজকল্যাণ যুব সংঘ লালপুরে মুসলিম হ্যান্ডসের তত্ত্বাবধানে মসজিদ নির্মাণে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপিত

আমনের ভাল ফলন

আকরাম উদ্দিন:  
আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবং সময়মত বৃষ্টি হওয়ায় বিভিন্ন স্থানের হাওরে এবার আমন ধানের ভাল ফলন হয়েছে বলে দাবি কৃষকের। কৃষকদের এমন দাবির প্রেক্ষিতে একমত পোষণ করে কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন এবার আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে এবং তেমন পোকার আক্রমণ ছিল না আমন জমির ধান গাছে।
ইতোমধ্যে হাওরজুড়ে ধান পাকা শুরু হয়েছে। অগ্রহায়ণের প্রথম দিন থেকে কোনো কোনো জমিতে ধান কাটতে শুরু করেছেন কৃষকেরা। এবার বেশি পরিমাণে ভাল ফলন হয়েছে বীনা ১৭ ও ইরি-৪৯ নম্বর বীজের ধান। গত বছরের তুলনায় অনেকটা বেশি ফলন হয়েছে এবার। কৃষকরা জানান, এবার পরিমাণ মত বৃষ্টি হয়েছে। এই বৃষ্টির ফলে ধান গাছে পোকায় তেমন আক্রমণ করতে পারেনি। সময়মত ধান গাছ বড় হয়েছে এবং শীষে ধানের পরিমাণ বেশি হয়েছে। এসব ধানের জাতের মধ্যে ফলন বেশি পরিমাণে ভাল হয়েছে বীনা-১৭ নামের আমন ধানের ফসল। এই জাতের ধান প্রতি কেয়ারে ১৮ থেকে ২০ মণ উৎপন্ন হয়েছে। ইরি ৪৯ প্রতি কেয়ারে ১৪ থেকে ১৫ মণ, ইরি ৩২ প্রতি কেয়ারে ১২ থেকে ১৩ মণ, বি.আর. ১১ ও বীনা ৭ প্রতি কেয়ারে ১১ থেকে ১২ মণ ধান উৎপন্ন হয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় অনেকটা বেশি।
সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের বেরীগাঁও গ্রামের পাশে হাওরের জমিতে সরেজমিনে গেলে কৃষকরা এই প্রতিবেদককে জানান, এবার আমন ধান প্রতি কেয়ারে সর্বোচ্চ ২০ মণ এবং সর্বনি¤œ ১১ মণ করে উৎপন্ন হয়েছে। তবে বীনা-১৭ নামের আমন ধানের ফসল হয়েছে প্রতি কেয়ারে ১৮ থেকে ২০ মণ এবং ইরি ৪৯ প্রতি কেয়ারে ১৪ থেকে ১৫ মণ। এ সময় জমিতে ধান কাটায় ব্যস্ত কৃষক জাকির হোসেন, আব্দুল হানিফ, মনির হোসেন, ওয়াজ কুরুনি, হানিফ মিয়া, আবুল মিয়া, আব্দুস ছত্তারসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।
জমির মালিক কৃষক চাঁন মিয়া বলেন,‘আমি ৫ কেয়ার জমি আবাদ করেছি। বীনা ২২ ও ইরি ৪৯ জমিতে আমার ফসল ভাল হয়েছে। এবার পরিমাণ মত বৃষ্টি হওয়ায় পোকার আক্রমণ তেমন ছিল না। হাওরে জমিতে তাকালে ধানের রঙ শুধুই স্বর্ণের মত। যেমন ধানের রঙ, তেমন বাড়তি ফলন। ধানের ভারে শীষ ঢলে পড়ছে দেখলে মন ভরে উঠে।’
সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিন টিপু বলেন, ‘এবার সদর উপজেলায় এগার হাজার বিঘা জমিতে আমন ধানের আবাদ হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় আমন ফসলের বাম্পার ফলন হয়েছে। ইতোমধ্যে জমিতে ধান পাকা শুরু হয়েছে। অগ্রহায়ণের শুরু থেকে ধান কাটা শুরু হয়েছে। গত বারের তুলনায় ফসল অনেকটা ভাল হয়েছে।’


আপনার এ্যাড দিন

ফটো গ্যালালি

Islamic Vedio

বিজ্ঞাপন ভিডিও এ্যাড




© All rights reserved © 2018 angina24.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com